Day: November 24, 2019

ফিচার

তৃণমূলের স্বাস্থ্যসেবায় ‘স্বাস্থ্যবন্ধুু’

প্রতি দিনই গ্রামে-গ্রামে ছুঁটছেন। বাইসাইকেলে করে যাচ্ছেন বাড়িতে বাড়িতে। সঙ্গে রয়েছে মাঝারি আকারের একটি বক্স। তার ভেতরে প্রাথমিক চিকিৎসার নানা সরঞ্জাম। বাড়ি বাড়ি গিয়ে অসুস্থদের খোঁজ-খবর নিচ্ছেন। প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা দিচ্ছেন। ডায়াবেটিস পরীক্ষা, ব্লাড প্রেসার পরিমাপ, রক্ত পরীক্ষা, মাতৃসেবা থেকে শুরু করে শিশু-নারী ও বৃদ্ধাদের নানা ধরনের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। তৃণমূলে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেয়া এই সেবাদাতারা […]

Read More
রোগ ও রোগী

অন্য অসুখে দাঁতের ব্যথা

দাঁতে ব্যথার অভিজ্ঞতা অধিকাংশ মানুষের আছে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দাঁতে ব্যথার উৎস দাঁত হলেও কখনো কখনো অন্য স্থানের অসুখেও দাঁত ব্যথা করতে পারে। মূলত অনুভূতির জন্য আমাদের স্নায়ুর বিন্যাস বা অবস্থানের কারণে এমনটি হয়। যেমন : ট্রাইজেমিনাল নিউরালজিয়া অনেক সময় আমরা এমন রোগী পাই যে প্রচ- দাঁতে ব্যথার ইতিহাস থাকলেও পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর দাঁতকে সুস্থ মনে হয়। […]

Read More
স্বাস্থ্য টিপ্স

সকালে খালি পেটে পানি পানের উপকারিতা

সকালে ঘুম থেকে উঠেই খালি পেটে পানি পান করা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো, তা আমরা অনেকেই জানি। কিন্তু এটা ঠিক কী কী উপকারে আসে আর তার সুফল কেমন করে পাওয়া যায়, তা হয়তো অনেকেরই অজানা। অল্প কিছু বিষয় মেনে চললেই সকালে খালি পেটে পানি পান করে সুস্থ-সবল থাকার পথে একধাপ এগিয়ে থাকা সম্ভব। সকালে পানি পানে […]

Read More
ফিচার

দেশের স্বাস্থ্য খাতে বিশেষ নজর দেওয়া দরকার

স্বাস্থ্যসেবা মানুষের মৌলিক চাহিদাগুলোর অন্যতম। সেকারণেই বিশ্বের প্রায় সব দেশ মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার জন্য সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়। এসডিজি’র ১৭টি লক্ষ্যের ‘সর্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষা’ প্রধানতম। তা সত্তে¡ও দেশের স্বাস্থ্য খাতের সার্বিক পরিস্থিতি করুণ। বিবিএস রিপোর্ট-২০১৭ অনুযায়ী, ‘দেশের ৫৭% মানুষ স্বাস্থ্য সেবার বাইরে রয়েছে।’ তারা তাবিজ, পানি পড়া, ঝাঁর-ফুক ও কবিরাজি ইত্যাদি অপচিকিৎসা নির্ভর। ফলে তারা […]

Read More
স্বাস্থ্য সংবাদ

অবৈধ ডায়াগনস্টিক সেন্টার!

দেশে বৈধ লাইসেন্সে মাত্র ৬ হাজার ৮৬৮টি ডায়াগনস্টিক সেন্টার থাকলেও অবৈধভাবে গড়ে ওঠা সেন্টারের সংখ্যা ৫০ হাজার ছাড়িয়ে যাবে। এসব প্রতিষ্ঠানে চিকিৎসাসেবার নামে চলছে গলাকাটা বাণিজ্য। শুধু রাজধানীতে লাইসেন্সপ্রাপ্ত ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সংখ্যা সাত শতাধিক। কিন্তু বাস্তবে রাজধানীতে রয়েছে পাঁচ হাজারেরও বেশি ডায়াগনস্টিক সেন্টার। কাঁচামাল ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে মাছ ব্যবসায়ীরা পর্যন্ত ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক বনে […]

Read More
স্বাস্থ্য সংবাদ

বাড়িতেই সন্তান প্রসব করেন ৮০ শতাংশের বেশি প্রসূতি

ন্যূনতম স্যানিটেশন সুবিধা নেই। অনুপস্থিত প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যসেবা। পুষ্টির বিষয়টি প্রায় অচেনা। অপুষ্টি তাই নিত্যসঙ্গী চা শ্রমিকদের পরিবারে। সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জের ডালুছড়া চা বাগানের শ্রমিক সুমিতা কৈরি মা হন গত বছর। প্রশিক্ষিত ধাত্রী ছাড়াই নিজ বাড়িতেই প্রথম সন্তান জন্ম দেন তিনি। সিলেট শহরের পাশেই লাক্কাতুরা চা বাগানে শ্রমিক লক্ষ্মী গোয়ালা মাস দুয়েক আগে বাড়িতে সন্তান জন্ম দেন। প্রসবকালে প্রশিক্ষিত কোনো ধাত্রীর সহযোগিতা নেননি তিনিও। সুমিতা কৈরির ভাষ্য, আমাদের পরিবারের সব নারীর বাড়িতে প্রসব হয়েছে। হাসপাতালে যাওয়া বাড়ির বয়স্করা পছন্দ করেন না। হাসপাতালে গেলে বা ধাত্রী ডেকে আনলে প্রসবকালীন ঝামেলা আরো বাড়ে। লক্ষ্মী গোয়ালা অবশ্য বলেন অর্থ সংকটের কথা। তিনি বলেন, ডাক্তারের কাছে গেলে তো টাকা দিতে হয়। ধাত্রী আনতেও টাকা দিতে হয়। টাকা পাব কোথায়? সুমিতা ও লক্ষ্মী গোয়ালা চাইলেই প্রশিক্ষিত ধাত্রী বা মিডওয়াইফের সেবা নিতে পারতেন। কিন্তু সে সুযোগটিও ছিল না বড়লেখার কেরামতনগর চা বাগানের শ্রমিক আয়েশা, সুদীপা ও অরুণার। তাদের বাগানে নেই প্রশিক্ষিত ধাত্রী বা মিডওয়াইফ। ফলে বাড়িতে প্রবীণ নারীদের সহযোগিতায় সন্তান প্রসব করেন তারা। চা বাগানের প্রায় প্রতিটি ঘরে গেলেই শোনা যাবে এমন ঘটনা। বাগানের বেশির ভাগ নারীরই সন্তান প্রসব হয় নিজ বাড়িতে চিকিৎসক, মিডওয়াইফ বা প্রশিক্ষিত কোনো ধাত্রীর সহযোগিতা ছাড়াই। চা শ্রমিকদের নিয়ে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) পরিচালিত এক জরিপে দেখা গেছে, সিলেটের তিন জেলার চা বাগানগুলোর প্রসূতিদের ১৬ শতাংশ সরকারি-বেসরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যান। বাকি ৮০ শতাংশের বেশি নারী বাড়িতেই সন্তান জন্ম দেন। যদিও জাতীয়ভাবে ৫৩ দশমিক ৪ শতাংশ প্রসূতি সরকারি-বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে সন্তান জন্ম দেন। তবে সিলেট বিভাগে এ হার ৪০ দশমিক ২ শতাংশ। এ বিভাগের চা বাগানগুলোয় তা আরো কম। সিলেট বিভাগীয় পরিচালকের (স্বাস্থ্য) দপ্তরের সহকারী পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. মো. আনিসুর রহমান বলেন, বেশির ভাগ চা বাগানেই প্রশিক্ষিত ধাত্রী বা মিডওয়াইফ নেই। এলাকার বয়স্ক নারীরাই এ কাজ করে থাকেন। ফলে চা বাগানগুলোতে মাতৃ ও নবজাতক মৃত্যুর হারও বেশি। চা বাগানের এক হাজার নবজাতকের মধ্যে ৫৫টি জন্মের সময়ই মারা যায়। সিলেট বিভাগে এ সংখ্যা ২৮। তবে বাড়িতেই সন্তান প্রসবেরও কিছু ভালো দিক দেখছেন বর্তমানে সিলেটে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করা বালিশিরা চা বাগানের বাসিন্দা অনিল পাল। তিনি বলেন, বাড়িতে প্রসব হওয়ায় চা বাগানে শিশুজন্মে অস্ত্রোপচারের হার খুব কম। অনিলের এমন দাবির সত্যতা মিলেছে জরিপের তথ্যেও। বিবিএসের জরিপে দেখা গেছে, চা বাগানে সন্তান প্রসবকালে অস্ত্রোপচারের হার মাত্র ৫ মাত্র ৬ শতাংশ। যদিও এ হার সারা দেশে ৩৬ শতাংশ আর সিলেট বিভাগে ১৯ দশমিক ৭ শতাংশ। তবে অনিলের সঙ্গে ভিন্নমত পোষণ করেন মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে চা শ্রমিকদের জন্য বালিশিরা টি কোম্পানি পরিচালিত ক্যামিলিয়া হাসপাতালের সেবিকা সানজানা শিরিন। তিনি বলেন, বাড়িতে কোনো প্রশিক্ষিত ধাত্রী ছাড়াই সন্তান প্রসব করায় প্রসূতি ও নবজাতকরা অনেক সমস্যায় ভোগেন। অতিরিক্ত রক্তপাত ও সংক্রমণের সমস্যা দেখা দেয়। সানজানা বলেন, শহরের পার্শ্ববর্তী বাগানগুলোয় প্রশিক্ষিত ধাত্রী থাকলেও প্রত্যন্ত এলাকার বাগানে এ রকম কাউকে পাওয়া যায় না। জানা যায়, ২০০৭-০৮ সালে সিলেটের বিভিন্ন চা বাগানের কয়েকজন নারীকে মিডওয়াইফ হিসেবে প্রশিক্ষণ প্রদান করে ‘মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন’ নামে একটি উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা। তবে প্রশিক্ষণের পর দু-একজন ছাড়া কোনো প্রশিক্ষণার্থী এটিকে পেশা হিসেবে নেননি। ‘মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন’-এর মাধ্যমে মিডওয়াইফের প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন লাক্কাতুরা চা বাগানের পরশ গোয়ালা। তিনি এখনো এ পেশায় আছেন। পরশ বলেন, দারিদ্র্য, কুসংস্কার, অশিক্ষাসহ নানা কারণে চা বাগানের নারীরা প্রসবকালে মিডওয়াইফ ডাকেন না। বাগানে এটি পেশা হিসেবে নেয়া মোটেই লাভজনক নয়। পুরনো ধ্যানধারণা আর কুসংস্কারের কারণেই চা বাগানের অনেক নারী প্রশিক্ষিত ধাত্রীর সেবা নেন না বলে জানিয়েছেন সিলেটের শ্রীপুর চা বাগানের ব্যবস্থাপক মনসুর আহমদও। তিনি বলেন, এখন প্রায় প্রত্যেক বাগানেই মিডওয়াইফ আছেন। তবু অনেকে এ সেবা গ্রহণ করেন না। ইউনিসেফের সহায়তায় প্রথমবারের মতো পরিচালিত এ জরিপ অনুযায়ী, ১৮ বছরের আগেই মা হন চা বাগানের ২২ দশমিক ২ শতাংশ নারী। শিশু জন্মের দুই দিনের মধ্যে […]

Read More
রোগ ও রোগী

ডায়াবেটিস থেকে চর্মরোগ

গত ১৪ নভেম্বর ছিল বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস। প্রতিবারের মতো সারা বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশেও নানা কর্মসূচির মাধ্যমে দিবসটি পালিত হয়েছে। ডায়াবেটিস সম্পর্কে রোগীদের সচেতন করাই ছিল এবারের লক্ষ্য। একজন চর্মরোগ চিকিৎসক হিসেবে ডায়াবেটিস থেকে চর্মরোগের নানা সমস্যা নিয়ে কিছু তুলে ধরার চেষ্টা করছি- সম্প্রতি একটি গবেষণায় দেখা গেছে, যাদের ডায়াবেটিস আছে এবং যারা এই […]

Read More